আইটি সাপোর্ট ব্যবসা থেকে আয়

Virginia Beach IT services

যুগটা এখন তথ্যপ্রযুক্তির। আমাদের জীবনের প্রতিটি ক্ষেত্রেই তথ্যপ্রযুক্তির ছোঁয়া লেগেছে। বাসাবাড়ি, অফিস আদালত, রান্নাঘর, স্কুল-কলেজ, ব্যাংক সবজায়গাতেই তথ্যপ্রযুক্তির ওপর নির্ভরতা বেড়েছে। বিভিন্ন সেক্টর তথ্যপ্রযুক্তির চূড়ান্ত সেবাটি নিতে চাইছে। তাইতো তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসায়ের জন্য অপার সম্ভাবনাময় একটি খাত। এ ব্যবসা থেকে উন্নয়ন ও আয়ের সম্ভাবনা অপার।

তথ্যপ্রযুক্তি সেবার রকমফের

তথ্যপ্রযুক্তি খাতের ক্রমাগত গবেষণা ও উন্নয়নের কারণে এই খাতের ব্যাপক প্রসার হচ্ছে দিনের পর দিন। তথ্যপ্রযুক্তি খাতের সেবাদানের ক্ষেত্রও এখন অনেক বিস্তৃত। বিবেচনা করার মতো তথ্যপ্রযুক্তি সেবার কয়েকটি জনপ্রিয় ধরন হলো-

ম্যানেজড আইটি সার্ভিস

আইটি ব্যবস্থাপনার কাজটি অনেক ঝুঁকির ও ঝামেলার। এর জন্য আলাদা জনবল নিয়োগ করে তার পেছনে সময় দেওয়ার কাজটি অনেক প্রতিষ্ঠান নিজে করতে চায় না। এই কাজটি তারা কোনো আইটি সার্ভিস কোম্পানিকে দিয়ে করিয়ে নিতে চায়।

আইটি সার্ভিসের জন্য অনেক ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানই সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানির ওপর নির্ভর করে; Image Credit: deltechsolutionsinc.net

তথ্যপ্রযুক্তি সেবার কাজটি গ্রাহকের কাছ থেকে আইটি কোম্পানির হাতে ছেড়ে দেওয়ার ধারণা থেকেই ম্যানেজড আইটি সার্ভিসের উৎপত্তি। এর ফলে ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান তাদের আইটি সংক্রান্ত সকল চিন্তা সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানির হাতে ন্যস্ত করে তাদের ব্যবসায়ের মূল কাজের দিকে মনোযোগ দিতে পারে। আইটি সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানি ওয়ার্কস্টেশন এবং অবকাঠামো তত্ত্বাবধানসহ একটি সম্মিলিত ফ্ল্যাট রেটে মাসিক বা বাৎসরিক ফি এর বিনিময়ে এই সেবাদানের কাজটি করে থাকে।

অন ডিমান্ড আইটি সার্ভিস

আইটি সার্ভিস কোম্পানিগুলো চাহিদাভিত্তিক সেবাও প্রদান করে থাকে। অন ডিমান্ড আইটি সার্ভিসে ম্যানেজড আইটি সার্ভিসের মতই নানা রকমের তথ্যপ্রযুক্তিভিত্তিক সেবা পাওয়া যায়।

গ্রাহকরা আইটি সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানি থেকে চাহিদাভিত্তিক সেবা পেতে পারে; Image Credit: slideshare.net

কিন্তু এখানে মাসিক বা বাৎসরিক ভিত্তিতে ফি প্রদান করতে হয় না। এই সার্ভিসে চাহিদাভিত্তিক নির্দিষ্ট সেবার মূল্য পরিশোধ করতে হয় কেবল।

নেটওয়ার্ক সেটআপ

ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানকে নির্দিষ্ট ফি এর বিনিময়ে প্রাথমিকভাবে নেটওয়ার্ক সেটআপ এবং সেগুলো নিয়মিত তদারকির সেবা দেওয়া যেতে পারে। আইটি সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানি এই সেবাটিকে আলাদাভাবে দিতে পারে আবার সমন্বিত আইটি প্যাকেজের অংশ হিসেবে প্রদান করতে পারে। তবে সমন্বিত আইটি প্যাকেজের অংশ হিসেবে প্রদান করলে বেশি ফলপ্রসূ হয়।

নেটওয়ার্ক নিরাপত্তা

সাইবার নিরাপত্তা আজকাল সকল ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানের জন্যই উদ্বেগের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তাই, সম্ভাব্য ঝুঁকির মূল্যায়ন এবং যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ অনেক আইটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রদত্ত জনপ্রিয় সেবাসমূহের মধ্যে অন্যতম।

আইটি সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানিগুলো নেটওয়ার্কের নিরাপত্তা নিশ্চিত করে থাকে; Image Credit: appliedtech.iit.edu

অধিকাংশ আইটি সার্ভিস প্রোভাইডার কোম্পানি সমন্বিত আইটি প্যাকেজের অংশ হিসেবে এই সেবাটি দিয়ে থাকে। কিন্তু কিছু আইটি কোম্পানি আবার এটি আলাদা সার্ভিস হিসেবেও দিয়ে থাকে।

ডেটাবেইজ ব্যবস্থাপনা

ডেটাবেইজ হলো এমন একটি ব্যবস্থা যা ব্যবসায় প্রতিষ্ঠানটি তার পুরো জীবনচক্রে ডেটা মনিটর এবং ডেটায় প্রবেশ করতে ব্যবহার করে। ডেটাবেইজে ভোক্তা এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের তথ্য, বিক্রয় এবং অর্থায়নের তথ্য থাকে। ডেটাবেইজ ব্যবস্থাপনায় ডেটা চালিত অ্যাপ্লিকেশনগুলোর কমপ্লায়েন্স, নিরাপত্তা এবং কর্মক্ষমতা নিশ্চিত করতে ডেটা সংগঠনের বিষয়টি অন্তর্ভুক্ত থাকে।

ক্লাউড কম্পিউটিং

ইন্টারনেটের মাধ্যমে সেবা দেয়ার একটি মাধ্যম হলো ক্লাউড কম্পিউটিং । ক্লাউড কম্পিউটিং এর মাধ্যমে ব্যক্তি কিংবা প্রতিষ্ঠান অন্যের ভার্চুয়াল মেশিন, স্টোরেজ, ইত্যাদি  রিসোর্স কিংবা অন্য কোনো সেবা নিতে পারে।

আইটি সার্ভিস প্রোভাইডিং এর আধুনিক সংযোজন ক্লাউড কম্পিউটিং; Image Credit: thebalancesmb.com

এজন্য ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের আলাদাভাবে সম্পূর্ণ অবকাঠামো তৈরির কোনো দরকার পড়ে না। যেমন, কয়েকদিনের জন্য হয়তো একটি হাই পারফরম্যন্স এর কম্পিউটার এর দরকার পড়লো সবসময় যেটার কাজ নেই। অল্প কয়েকদিনের জন্য এমন কনফিগারেশানের কম্পিউটার কিনেও পোষাবে না কারণ সেক্ষেত্রে খাজনার চেয়ে বাজনা বেশি হয়ে যাবে।

এক্ষেত্রে ক্লাউড কম্পিউটিং এর মাধ্যমে যে কোনো ক্লাউড কোম্পানি থেকে প্রয়োজন মতো ভার্চুয়াল মেশিন ব্যবহার করা যায়। এতে বাড়তি অনেক খরচ যেমন বেঁচে যায় তেমনি আইটি কোম্পানির লাভ হয় কয়দিনের জন্য একটা রিসোর্স ভাড়া দিয়ে। ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর কাছে ক্লাউড কম্পিউটিং রিসোর্স ভাড়া দিয়ে আইটি সার্ভিস প্রোভাইডারদের কোম্পানিগুলো ভালো অংকের অর্থ আয় করতে পারে। 

সফটওয়্যার সাপোর্ট

নির্দিষ্ট সফটওয়্যার পণ্যের কারিগরী সহায়তা এবং সফটওয়্যার সংক্রান্ত সমস্যা সমাধান সফটওয়্যার সাপোর্ট সার্ভিসের অন্তর্ভুক্ত। দীর্ঘমেয়াদী কারিগরী সহায়তা চুক্তি অথবা পে-অ্যাজ-ইউ-গো ভিত্তিতে এই সার্ভিসের ফি নির্ধারিত হয়। সফটওয়্যার সাপোর্ট সার্ভিসে দূরবর্তী সমস্যা সমাধান, ইন্সটলেশন সহায়তা এবং ব্যবহার সহায়তা অন্তর্ভুক্ত। টেলিফোন বা অনলাইনে দূরবর্তী সমস্যা সমাধানের কাজটি করা হয়ে থাকে। সফটওয়্যার সাপোর্ট সার্ভিসে আরো রয়েছে নতুন সফটওয়্যার ইনস্টলেশন সার্ভিস, সফটওয়্যার আপডেট ইন্সটলেশন, বিভিন্ন কাস্টম অ্যাপ্লিকেশনের ক্ষেত্রে সহায়তা, ইত্যাদি।

ডেটা স্টোরেজ

ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিপর্যায়ে ডেটা স্টোরের জন্য প্ল্যাটফর্ম বা সেবা দেওয়া যেতে পারে। ব্যবহারকারীকে যাতে মূল ডিভাইসে সবকিছু মজুদ করে না রাখতে হয় সেজন্য তাদের ক্লাউড প্ল্যাটফর্ম অথবা অন প্রেমিসেস স্টোরেজ অপশন দেওয়া হয়। সংবেদনশীল তথ্যের ক্ষেত্রে যেকোনো নিরাপত্তা সেবার সাথে একত্রে এই সেবাটি দেওয়া যায়।

ভিওআইপি সার্ভিস

ভিওআইপি এর পূর্ণরূপ হলো ভয়েজ ওভার ইন্টারনেট প্রটোকল। ক্লায়েন্টকে অনলাইন সার্ভিস দেওয়া যেতে পারে যাতে ভয়েস কলিং এর মাধ্যমে যোগাযোগ করা সম্ভব। এই সার্ভিস নিয়মিতভাবে বা চাহিদাভিত্তিক দেওয়া যেতে পারে।

কম্পিউটার মেরামত

কম্পিউটার, মাদারবোর্ড বা গ্রাফিকস কার্ড নিয়ে কাজ করতে আগ্রহী হলে স্থানীয়ভাবে প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তিপর্যায়ে কম্পিউটার মেরামতের সেবা দেওয়া যেতে পারে। এই ধরনের কাজের ক্ষেত্রে ক্লায়েন্টের সাথে সাক্ষাৎ করার প্রয়োজন হয়। 

তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবসায শুরু করতে চাইলে সেবাদানের ধরন নির্দিষ্ট করা হবে জরুরী কাজগুলোর একটি। তথ্যপ্রযুক্তি কোম্পানিগুলো একই রকমের নয় কেননা গ্রাহকদের সেবা দেওয়ার অজস্র সুযোগ রয়েছে এই খাতে। 

ফিচার ছবি- whitewidowweb.com

Written by Sadman Sakib

ক্যাটারিং ব্যবসায় সফল হবার উপায়

বিউটি পার্লার ব্যবসা থেকে আয়